আন্তর্জাতিক বিশ্ব


বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ১৯ লাখ ছাড়ালো

সারাবিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯ কোটি ৭৭ হাজার ৪৭১ জন। আর এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৩৪ হাজার ৮১৩ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ৬ কোটি ৪৪ লাখ ৬৩ হাজার ৩৬৫ জন। করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের সংখ্যা ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটার থেকে এই তথ্য জানা যায়। ওয়ার্ল্ডওমিটারের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে ৩ লাখ ৮১ হাজার ৪৮০ জন এখন পর্যন্ত মারা গেছেন। বিশ্বে সর্বোচ্চ আক্রান্তের সংখ্যাও এই দেশটিতে। এই পর্যন্ত ২ কোটি ২৬ লাখ ৯৯ হাজার ৯৩৮ জন এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের পর মৃত্যু বিবেচনায় করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হচ্ছে ব্রাজিল। আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় স্থানে থাকলেও মৃত্যু বিবেচনায় দেশটির অবস্থান দ্বিতীয়। লাতিন আমেরিকার দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ৮০ লাখ ৭৫ হাজার ৯৯৮ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ২ হাজার ৬৫৭ জনের। আক্রান্তের দিক থেকে দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসা ভারত মৃত্যু বিবেচনায় আছে তৃতীয় স্থানে। এ পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৪৫ লাখ ১ হাজার ৩৪৬ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৫১ হাজার ৪৮ জনের।

 

মুসলিম চিকিৎসকের উদারতা : ২০০ রোগীর ৫ কোটি টাকা বকেয়া মওকুফ

মহামারির মধ্যেই মানবিকতার এক অনন্য নজির স্থাপন করলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক মুসলিম চিকিৎসক। উমার আতিক নামের পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত এই চিকিৎসক ক্যানসার রোগীদের বাঁচিয়ে তোলাই শুধু নয়, ২০০ জন রোগীর বকেয়া প্রায় ৬ লাখ ৫০ হাজার ডলার (বাংলাদেশী মুদ্রায় সাড়ে পাঁচ কোটি টাকারও বেশি) মওকুফ করে দিয়েছেন। জানা গেছে, ক্যানসার বিশেষজ্ঞ উমার আতিক দীর্ঘদিন ধরেই বহু রোগীকে আল্লাহর ইচ্ছায় সুস্থ করেছেন। অনেকের কাছেই টাকা পেতেন তিনি। এরপর সম্প্রতি নিজের ক্লিনিক বন্ধের সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু হিসাব করতে যেয়ে দেখেন, রোগীদের কাছে তার বকেয়া টাকার পরিমাণ সাড়ে ৬ লাখ ডলারেরও বেশি। পরবর্তীতে সেই বকেয়া টাকা ফেরত চাওয়ার সময়ই বুঝতে পারেন, অনেকেই তাদের বিলের টাকা দিতে অপারগ। এরপরই এই মানবিক সিদ্ধান্ত নেন আতিক। প্রায় ২০০ জন রোগীর বিল মওকুফ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন তিনি। উল্টো যাদের বিল বকেয়া ছিল, তাদের ক্রিসমাসের একটি গ্রিটিংস কার্ড পাঠান। তাতে জানান যে, তার আরকানসাস ক্যানসার ক্লিনিকটি এবার বন্ধ হতে চলেছে। যে যে রোগীদের বকেয়া রয়েছে তা আর মেটানোর প্রয়োজন নেই। তার এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই প্রত্যেকেই তাকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন। খুশি ওই রোগীদের পরিবারের লোকজনও।