اَلْحَمْدُ لِلّٰهِ وَحْدَهُ وَالصَّلَاةُ وَالسَّلَامُ عَلٰى مَنْ لَّا نَبِيَّ بَعْدَهُ
উলামায়ে কেরামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বন্ধ করুন


আলেম-উলামার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রের বিভিন্ন চিত্র ফুটে উঠছে প্রতিনিয়ত। মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো, হয়রানি, গ্রেফতারসহ আইনী নানা পদক্ষেপ গ্রহণ সেসব ষড়যন্ত্রেরই কয়েকটি দিক। সম্প্রতি ভূইফোঁড় তথাকথিত ‘গণকমিশন’ কর্তৃক দেশের শতাধিক আলেম ও বক্তাকে হেয়প্রতিপন্ন করে দুদকে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের সেই নির্লজ্জ ধারাবাহিকতারই অংশবিশেষ।  

অথচ আলেম-উলামা এদেশের বৈধ নাগরিক, তারা এখানকার গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। আলেম-উলামা জাতির রাহবার। প্রকৃত মানুষ তৈরির কারিগর। তারা নিজেরা যেমন যে কোনো অন্যায়ের ব্যাপারে আপসহীন; ছোট-বড় দুর্নীতি থেকে বহু দূরে; তেমনি দেশের যোগ্য নাগরিক হিসেবে সবচেয়ে কম সুবিধা ভোগ করা সত্ত্বেও সবচেয়ে বেশি সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তারাই। জন্মভূমির প্রতি অকুণ্ঠ ভালোবাসা, এর স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষা, দেশ-জাতির শান্তি, সমৃদ্ধি ও উন্নতির জন্য সর্বকালে তাদের রয়েছে অগ্রণী ভূমিকা। ফেতনা-ফাসাদ, ঝগড়া-বিবাদ, অন্যায়-অনাচার, দুর্নীতি-কদাচার, যেনা-ব্যভিচার, চুরি, ডাকাতি, মারামারি, হানাহানি, হত্যা, লুণ্ঠন ইত্যাদি থেকে জনগণকে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে আলেম-উলামার অবদান সবচেয়ে বেশি। এমনকি দেশের প্রশাসন যে কাজগুলো হয়তো করতে পারেন না, সেগুলোতে উলামায়ে কেরামের রয়েছে সক্রিয় অংশগ্রহণ। যোগ্য নাগরিক তৈরি, মানবসম্পদ তৈরি, শান্তিময় পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্র গঠন, আর্থ-সামাজিক ‍উন্নয়ন ইত্যাদির জন্য উলামায়ে কেরাম কাজ করে যাচ্ছেন। জ্ঞান-বিজ্ঞানেও তাদের অবদান কম নয়। এককথায় এদেশের আপামর জনগণকে মানুষের মতো মানুষ তৈরিতে ও একটি শান্তিপূর্ণ সমৃদ্ধ দেশ গঠনে আলেম-উলামা পাঠদান, উপদেশদান, জুম‘আ ও ঈদের খুৎবা প্রদান, ধর্মীয় জালসা, লেখনি ইত্যাদি নানা উপায়ে অসামান্য অবদান রেখে চলেছেন। একজন মানুষের ইহকালে শান্তি ও পরকালে মুক্তির জন্য নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন আলেম-উলামাই।

সেজন্যই তো ইসলাম আলেম-উলামার সর্বোচ্চ মর্যাদা দিয়েছে (আল-মুজাদালাহ, ৫৮/১১)। হাদীছে আলেম-উলামাকে পূর্ণিমার চাঁদের সাথে তুলনা করা হয়েছে (আহমাদ, হা/২১৭১৫)। কারণ তারাই মানুষকে অন্ধকার থেকে আলোর পথের দিশারী। আবূ মুসলিম খাওলানী p বলেন, ‘ভূপৃষ্ঠে উলামায়ে কেরাম হচ্ছেন আসমানে তারকারাজির মতো। যখন সেগুলো মানুষের জন্য উদিত হয়, তখন তারা সেগুলো দ্বারা পথ খুঁজে পায়। আর সেগুলো অস্তমিত হলে তারা দিশেহারা হয়ে পড়ে’ (নববী, আল-মাজমূ‘, ১/১৯)। তাদের মর্যাদা, গুরুত্ব ও সার্বজনীন কল্যাণকামিতার কারণেই ফেরেশতা থেকে শুরু করে পানির নিচের মাছ ও গর্তের পিঁপড়া পর্যন্ত সবাই তাদের জন্য কল্যাণের দু‘আ করে (তিরমিযী, হা/২৬৮৫)

এই যাদের মর্যাদা, এই যাদের অবদান, তাদের বিরুদ্ধাচরণ করা, তাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা কারো জন্যই সমীচীন নয়; বরং তা রীতিমতো অন্যায়। হাদীছে কুদুসীতে মহান আল্লাহ বলেন, ‘যে ব্যক্তি আমার কোনো অলীর সঙ্গে দুশমনি করবে, আমি তার সঙ্গে যুদ্ধ ঘোষণা করব’ (বুখারী, হা/৬৫০২)। হাফেয ইবনে হাজার আসক্বালানী p এ হাদীছের ব্যাখ্যায় বলেন, ‘এখানে আল্লাহর অলী দ্বারা উদ্দেশ্য আল্লাহ সম্পর্কে জ্ঞানী ব্যক্তি, যিনি সর্বদা তার আনুগত্য করেন’ (ফাতহুল বারী, ১১/৩৪২)। ইমাম আবূ হানীফা p বলেন, ‘দুনিয়া ও আখিরাতে ফক্বীহ ও আলেমগণ যদি আল্লাহর অলী না হবেন, তাহলে আল্লাহর কোনো অলী নেই’ (আল-ফাক্বীহ ওয়াল মুতাফাক্কিহ, ১/১৫০)। ইবনে আব্বাস h বলেন, ‘যে ব্যক্তি কোনো ফক্বীহকে কষ্ট দিল, সে রাসূল a-কে কষ্ট দিল। আর যে রাসূল a-কে কষ্ট দিল, সে স্বয়ং মহান আল্লাহকে কষ্ট দিল’ (আল-মাজমূ‘, ১/২৪)

অতএব, ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা রাষ্ট্র সকলের প্রতি আমাদের আন্তরিক আহ্বান, আলেম-উলামার প্রতি যথাযথ সম্মান, মর্যাদা, ভক্তি, আদব ও ভালোবাসা বজায় রাখুন। তাদের ব্যাপারে সুধারণা পোষণ করুন। তাদের ভুলত্রুটি ন্যায়সঙ্গত উপায়ে হিকমতের সাথে সংশোধনের চেষ্টা করুন। সরকারের প্রতি আমাদের বিশেষ আহ্বান, উস্কানি ও ষড়যন্ত্রমূলক যে কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে সতর্ক দৃষ্টি রেখে ন্যায়সঙ্গত অবস্থান গ্রহণ করুন। ‘গণকমিশন’-এর ব্যাপারে আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।

আমরা মনে করি, রাষ্ট্রীয় প্রশাসনের ভূমিকা ও উলামায়ে কেরামের প্রচেষ্টার মধ্যে সমন্বয় করা গেলে খুব সহজেই একটি সত্যিকার আদর্শ রাষ্ট্র গঠন করা সম্ভব ইনশাআল্লাহ। মহান আল্লাহ তাওফীক্ব দান করুন। আমীন!