প্রায় শতভাগ বিশ্ববাসী দূষিত বায়ুতে শ্বাস নেন

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) বলেছে, বিশ্বের প্রায় ৯৯ শতাংশ মানুষই অত্যন্ত দূষিত বায়ুতে শ্বাস নেন। সংস্থাটির এক প্রতিবেদনে প্রত্যেক বছর দূষিত বায়ুর কারণে বিশ্বে লাখ লাখ মানুষের প্রাণহানি ঘটছে বলেও জানানো হয়েছে। জাতিসংঘের স্বাস্থ্যবিষয়ক এই সংস্থার নতুন তথ্যে দেখা গেছে, বিশ্বের প্রত্যেক প্রান্তেই মানুষ বায়ু দূষণ মোকাবিলা করছে। তবে দরিদ্র দেশগুলোতে এই সমস্যা আরও প্রকট। সংস্থাটির পরিবেশ, জলবায়ু পরিবর্তন ও স্বাস্থ্যবিষয়ক সংস্থা বলছে, বিশ্বের জনসংখ্যার প্রায় ১০০ ভাগই এখন এমন বায়ুতে শ্বাস নিচ্ছেন; যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সুপারিশকৃত বায়ুমানের চেয়েও খারাপ, ‌এটি একটি প্রধান জনস্বাস্থ্য সমস্যা। বায়ু দূষণের কারণে বছরে এখনও ৭০ লাখ মৃত্যু ঘটছে। গত বছর ডব্লিউএইচও তার বায়ুমান নির্দেশক গাইডলাইন পরিবর্তনের পর জানায়, পিএম২.৫ (PM-2.5) নামে পরিচিত ছোট এবং বিপজ্জনক বায়ুকণার গড় বার্ষিক ঘনত্ব প্রতি ঘনমিটারে ৫ মাইক্রোগ্রামের বেশি হওয়া উচিত নয়। তবে এরচেয়েও কম ঘনত্ব উল্লেখযোগ্য স্বাস্থ্য ঝুঁকির কারণ হতে পারে। সুইজারল্যান্ডভিত্তিক দূষণ প্রযুক্তি সংস্থা আইকিউএয়ার বলছে, বায়ুদূষণ এখন বিশ্বের সবচেয়ে বড় পরিবেশগত স্বাস্থ্য হুমকি। প্রত্যেক বছর বিশ্বজুড়ে ৭০ লাখের বেশি মানুষের প্রাণহানি ঘটে বায়ু দূষণের কারণে। মানব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক বিভিন্ন ধরনের রোগ যেমন— প্রাণঘাতী ক্যান্সার এবং হৃদযন্ত্রের সমস্যা তৈরি করে পিএম-২.৫। আইকিউএয়ার বায়ুতে পিএম-২.৫ এর যে উপস্থিতি পেয়েছে তা বৈশ্বিক স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক বলে সতর্ক করে দিয়েছে।