৮ মাসে ৩৬৪ শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা


শিক্ষার্থী ও কম বয়সী ছেলেমেয়েদের মাঝে প্রতিনিয়তই বাড়ছে আত্মহত্যার প্রবণতা। পরীক্ষায় ফেল, প্রেমে ব্যর্থতা, ব্রেকাপ, বাবা-মায়ের সঙ্গে বিবাদ, স্কুলে বকাঝকা, ইন্টারনেটে হয়রানি সবকিছুর সমাধান যেন তারা খুঁজতে শুরু করেছে জীবন সমাপ্তির মধ্য দিয়ে। মদ্যপায়ীদের মধ্যে আত্মহত্যার হার বেশি। হিরোইনসেবীদের আত্মহত্যার হার সাধারণ মানুষের তুলনায় প্রায় ১৪ গুণ বেশি। আঁচল ফাউন্ডেশনের এক সমীক্ষায় জানা গেছে, শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রতিমাসে গড়ে ৪৫ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে আগস্ট মাসের মধ্যে ৩৬৪ জন আত্মহননের পথ বেছে নেয় যারা তাদের জীবদ্দশায় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত ছিলেন। এদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ, স্কুল, মাদরাসা, নার্সিং প্রভৃতি স্তরের শিক্ষার্থী রয়েছেন। ৩৬৪ জন আত্মহত্যাকারীর মধ্যে ১৯৪ জনই ছিলেন স্কুলগামী শিক্ষার্থী। দ্বিতীয় অবস্থানে ছিলেন কলেজ শিক্ষার্থীরা যার সংখ্যা ৭৬ জন। অপরদিকে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের মধ্যে আত্মহননকারীর সংখ্যা ৫০ জন। তবে মোট আত্মহননকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে মাদরাসায় অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীও ছিলেন ৪৪ জন। আত্মহত্যাকারীদের বয়সভিত্তিক সমীক্ষা থেকে দেখা যায়, ১৩ থেকে ২০ বছর বয়সীদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা সবচেয়ে বেশি, যা ৭৮ শতাংশ। ২১ থেকে ২৬ বছর বয়সীদের মধ্যে ১৩ শতাংশ শিক্ষার্থী আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছে। ১৩ বছরের নিচে যাদের বয়স, তারাও এই পথ থেকে পিছপা হয়নি। ৬ থেকে ১২ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রায় ৮ শতাংশ অর্থাৎ ২৯ জন আত্মহত্যা করেন। তবে সবচেয়ে বেশি আত্মহত্যা করেছে ১৪ থেকে ১৬ বছর বয়সীরা, যার সংখ্যা ১৬০ জন। এছাড়াও সর্বনিম্ন ৭ বছরের একটি শিশুও আত্মহত্যা করেছে।