বিশুদ্ধ আক্বীদা

আশরাফুল ইসলাম

৩য় বর্ষ, দাওয়াহ এন্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ,

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া।

বিশুদ্ধ আক্বীদা আজকের কবিতা

আক্বীদা বিশুদ্ধ না হলে জাহান্নামই হবে ব্যবস্থা।

আক্বীদা, যার শাব্দিক অর্থ হলো যে বিশ্বাস

বিশুদ্ধ আক্বীদাতে, নবী দিয়েছেন জান্নাতের আশ্বাস।

আক্বীদা নিয়ে এখন হবে কিছু আলোচনা

তাতে কিছু না কিছু সবার হবে জানা।

আক্বীদা বিশুদ্ধ না হলে, হবে না আমল কবুল

তাই সবকিছুর আগে আক্বীদার বিশুদ্ধতা হলো মূল।

বিশুদ্ধ আক্বীদাতে মনে আসবে বেহেশতের আস্থা

‎আক্বীদা বিশুদ্ধ না হলে জাহান্নামই হবে ব্যবস্থা।

কেউ করে বিশ্বাস আল্লাহর নাকি নেই কোনো আকার

অথচ নবী বলেন আল্লাহ জান্নাতে দিবেন দীদার।

আকার না থাকলে কী করে দেখব রহমানকে

আকার না থাকলে অস্তিত্ব কী করে থাকে?

নিরাকার আল্লাহকে বিশ্বাস করে জান্নাত হবে নাকো সস্তা

আক্বীদা বিশুদ্ধ না হলে হবে জাহান্নামই ব্যবস্থা।

আল্লাহ আছেন নাকি সবকিছুতে সবারই মাঝে

তাই তো মুশরিকরা সব সিজদা করে সকাল সাঝে।

ছহীহ মুসলিমের হাদীছ বলে আল্লাহ আসমানে

সূরা ত্বো-হার পাঁচ আয়াতে বলে আল্লাহ নেইকো যমীনে।

আল্লাহ আছেন সবে, মাধ্যমে জ্ঞান আর ক্ষমতা

আক্বীদা বিশুদ্ধ না হলে হবে জাহান্নামই ব্যবস্থা।

কেউ বলে নবী নাকি নয় মাটির, তিনি যে নূর

আল্লাহ বলেন মানুষ আমি করেছি মাটির।

সূরা কাহ্ফের শেষ আয়াত বলে নবীও মানুষ

তো কী করে বলো তুমি নবী নূর, নেই কি হুঁশ?

যা জানো না তাই নিয়ে কেন এত মাথা ব্যথা

আক্বীদা বিশুদ্ধ না হলে হবে জাহান্নামই ব্যবস্থা।

নবী নাকি জানে ভবিষ্যত আর অদৃশ্যের কথা

সূরা আন‘আমে আছে আল্লাহর কাছেই অদৃশ্যের চাবিটা।

আল্লাহ ছাড়া কেউ জানে না ভবিষ্যতের খবর

কেউ বলে মোল্লা আর পীররাও নাকি নয় বেখবর!

শ্রেষ্ঠ মানবই জানেন না, আর পীর আবার কোনথা

আক্বীদা বিশুদ্ধ না হলে, জাহান্নামই হবে ব্যবস্থা।