ইসলাম শিক্ষা পাঠদান চালু স্পেনে

স্পেনের স্কুলগুলোতে এবার চালু হচ্ছে ‘ইসলাম শিক্ষা’ পাঠদানের আসর। দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বিত্তশালী স্বায়ত্তশাসিত অঙ্গরাজ্য কাতালোনিয়ার সরকারি স্কুলে প্রাথমিক স্তরের প্রথম বছর পরীক্ষামূলক ‘ইসলামিক রিলিজিওন’ বিষয়ে পাঠদানের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে প্রদেশটির শিক্ষা বিভাগ। সম্প্রতি  স্পেনের কাতালোনিয়া প্রদেশের শিক্ষা বিভাগ এক প্রজ্ঞাপনে এ ঘোষণা দেয়। কাতালোনিয়ার চারটি প্রদেশ বার্সেলোনা, গিরোনা, লেইদা এবং তারাগোনা অঞ্চলের স্কুলগুলোতে এই পরিকল্পনার অধীনে ইসলাম ধর্মের পাঠদান করা হবে। ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে এটি চালু হবে বলে জানানো হয় স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে। কাতালোনিয়ার ডিপার্টমেন্ট অব এডুকেশন অব দ্যা জেনেরালিতাতের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, প্রথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষে অগ্রধিকারের ভিত্তিতে ‘ইসলামিক রিলিজিওন’ বিষয়ে শেখানো হবে। প্রদেশটির বাধ্যতামূলক মাধ্যমিক শিক্ষা (ইএসও) স্তরেও ‘ইসলামিক রিলিজিওন’ বিষয়ে পাঠদান করা হবে বলে জানানো হয় প্রজ্ঞাপনে। স্পেনের ২০ লাখ মুসলিমের মধ্যে শুধুমাত্র কাতালোনিয়া প্রদেশেই ১৫ লাখ মুসলিমের বসবাস। স্পেনে মুসলিম জনগোষ্ঠীর সংগঠন ইউনিয়ন অব ইসলামিক কমিউনিটির তথ্য মতে, স্পেনের মোট জনসংখ্যার ৩.৮ ভাগ মুসলিম। তাদের মধ্যে ৬০ ভাগ অভিবাসী মুসলিম।

 

এক লাখ ৬৬ হাজার ফিলিস্তীনী বসতি ভেঙে দিয়েছে ইসরাঈল

ইয়াহূদীবাদী ইসরাঈল প্রতিষ্ঠার পর থেকে এ পর্যন্ত ফিলিস্তীনীদের এক লাখ ৬৬ হাজার ঘরবাড়ি ভেঙে দিয়েছে। এছাড়া ইসরাঈলী দখলদারিত্বের কারণে ১০ লাখ ফিলিস্তীনী উদ্বাস্তু হয়েছেন। আরব স্টাডিজ অ্যাসোসিয়েশনের ল্যান্ড রিসার্চ সেন্টার এক রিপোর্টে এ তথ্য জানিয়েছে। অধিকৃত জেরুজালেমের আল-কুদস শহর ভিত্তিক এই সংগঠন এক বিবৃতিতে বলেছে, ইয়াহূদীবাদী ইসরাঈল এ পর্যন্ত এক লাখ ৬৫ হাজার ৬৯০টি ফিলিস্তীনী ঘরবাড়ি মাটির সাথে মিশিয়ে দিয়েছে এবং তাদের কারণে ১০ লাখ ফিলিস্তীনী অভ্যন্তরীণভাবে এবং ভিটেমাটি ছেড়ে ভিনদেশে উদ্বাস্তু হতে বাধ্য হয়েছেন।