اَلْحَمْدُ لِلّٰهِ وَحْدَهُ وَالصَّلَاةُ وَالسَّلَامُ عَلٰى مَنْ لَّا نَبِيَّ بَعْدَهُ

স্বাধীনতার মাসে দেশের শান্তি-সমৃদ্ধির শপথ নিন


১৯৪৭ সালের কথা, ভারতবর্ষকে বিভক্ত করে ভারত ও পাকিস্তান নামে দু’টি পৃথক রাষ্ট্রের জন্ম হয়। পূর্ব পাকিস্তান ও পশ্চিম পাকিস্তান নিয়ে গঠিত হয় পাকিস্তান। মূলত পূর্ব পাকিস্তান পূর্ব বাংলা হিসেবে গঠিত হয়। পশ্চিম পাকিস্তানের অধীনে থাকে সিন্ধু, উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ, পশ্চিম পাঞ্জাব ও বেলুচিস্তান। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর থেকে বাঙালিদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ ও শোষণ পরিলক্ষিত হয় এবং বাঙালিরা তাদের ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত হতে শুরু করে। উর্দূকে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হিসেবে ঘোষণা করে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির অবজ্ঞা করার ব্যাপারটা তো রয়েছেই। ফলে এসবের বিরুদ্ধে বাঙালিরা প্রতিরোধ গড়ে তুলতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হয়। বস্তুত ১৯৪৮-১৯৫২-এর ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ১৯৫৪ সালের প্রাদেশিক নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের বিজয়, ১৯৬২-১৯৬৩ সালে আইয়ুব বিরোধী আন্দোলন, ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচন এবং ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ— এ সবই ছিল সেই প্রতিরোধের ধারাবাহিকতা। ১৯৭১-এর ২৬ মার্চ বাংলার মানুষ সেসব শোষণ প্রতিহত করার জন্য স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর ১৬ ডিসেম্বর বিজয় অর্জিত হয়; বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের অস্তিত্ব হয়।

কিন্তু স্বাধীনতার ৫০ বছর পেরুলেও আমরা কি সত্যিকার অর্থে কাঙ্ক্ষিত সমৃদ্ধি অর্জন করতে পেরেছি? আসলে প্রকৃত শান্তি ও সমৃদ্ধি অর্জন করতে হলে সরকার ও জনগণ সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে। পরস্পরের প্রতি পরস্পরের দায়িত্ব যথারীতি পালন করতে হবে। ইসলামের দৃষ্টিতে সরকারের জন্য জনগণের যেমন কিছু কর্তব্য রয়েছে, তেমনি জনগণের জন্যও সরকারের রয়েছে অনেক কর্তব্য। জনগণের কর্তব্যের মধ্যে রয়েছে- ১. সরকারের সাথে কৃত বায়আত রক্ষা করে চলা। রাষ্ট্রের শান্তি, শৃঙ্খলা ও স্থিতিশীলতার জন্য বায়আতে কৃত অঙ্গীকার পূরণ করা অতীব জরুরী (আল-মায়েদা, ৫/১;  বুখারী, হা/৩৪৫৫;  মুসলিম, হা/১৮৪২)। ২. শরীআতের বিরোধিতা না হয়ে গেলে সরকারের আনুগত্য করতে হবে (আন-নিসা, ৪/৫৯)। ৩. সুখে-দুঃখে, কঠিন ও স্বাভাবিক অবস্থায় সর্বদা সরকারকে সাহায্য করতে হবে। ভেতরের বা বাইরের যে-ই রাষ্ট্রে ফেতনা করতে আসবে, তাদের বিরুদ্ধে সরকারের পক্ষে কাজ করতে হবে (আল-হুজুরাত, ৪৯/৯; বুখারী, হা/২৯৫৭; মুসলিম, হা/১৮৪১)। ৪. শাসকশ্রেণিকে নছীহত করতে হবে। এটা বিশেষ করে দেশের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের কাজ হলেও সাধারণ জনগণও এর আওতায় পড়তে পারে। বিভিন্ন বিষয়ে সরকারকে নছীহত করা, তাদের ভুল শুধরিয়ে দেওয়া জনগণের দায়িত্ব (মুসলিম, হা/৫৫)। ৫. সরকার কর্তৃক ঘটিত অপছন্দনীয় ব্যাপারে ধৈর্যধারণ করতে হবে। এমনকি অত্যাচার ঘটে গেলেও জনগণকে ধৈর্যধারণ করতে হবে (বুখারী, হা/৭০৫৪ ও ৭১৪৩; মুসলিম, হা/১৮৪৯)। ৬. সরকার যাতে দুশ্চিন্তামুক্ত হয়ে দেশ ও জনগণের জন্য কাজ করে যেতে পারে, সেজন্য বায়তুল মাল বা রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে তার জন্য বেতন-ভাতা নির্ধারণ করতে হবে (তারীখু দিমাশক, ৩০/৩২১)। ৭. শাসকগোষ্ঠীকে গালমন্দ করা যাবে না। শাসক ও জনগণের মধ্যে ভালো সম্পর্ক থাকা চাই। তাহলে শাসক যেমন জনগণের উপর আস্থা রাখতে পারবে, জনগণও তেমনি শাসকগোষ্ঠীর উপর আস্থা রাখতে পারবে। এভাবে দেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধিতে সবাই মিলে ভূমিকা রাখতে পারবে। পক্ষান্তরে এর বিপরীত হলে সবকিছু পিছিয়ে যাবে। সেজন্য ইসলাম শাসকগোষ্ঠীর সাথে ভালো সম্পর্ক রাখতে বলেছে (ইবনু আবী আছেম, আস-সুন্নাহ, হা/১০১৫)। ৮. শাসকগোষ্ঠীর সাথে প্রতারণা করা যাবে না। সাধারণভাবে এটা মারাত্মক অপরাধ; আর যদি তা সরকারের সাথে হয়, তাহলে তার ভয়াবহতা আরো বেশি। এতে দেশ ও জনগণের ক্ষতি হয়। সেকারণে রাসূল a সর্বপ্রকার প্রতারণা করতে নিষেধ করেছেন (মুসলিম, হা/১০২)। ৯. রাষ্ট্রীয় সম্পদ আত্মসাৎ করা যাবে না। শাসকগোষ্ঠীর সাথে খেয়ানত করে বা অন্য কোনো উপায়ে রাষ্ট্রীয় সম্পদ হাতিয়ে নেওয়া হারাম এবং এটা বড় ধরনের খেয়ানত (বুখারী, হা/৩০৭৩;  মুসলিম, হা/১৮৩১ ও ১৮৩৩)। ১০. সরকারকে প্রকাশ্যে জনসম্মুখে নছীহত করা যাবে না। সরকারের নছীহত হবে কোমলতার সাথে গোপনে; প্রকাশ্যে নয় (আহমাদ, হা/১৫৩৩৩; মুসলিম, হা/২৯৮৯)

অনুরূপভাবে জনগণের জন্য মুসলিম শাসকের কাঁধেও রয়েছে বহু গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব। দ্বীন ও দুনিয়া উভয়ের সংরক্ষণ ও তত্ত্বাবধান শাসকশ্রেণির দায়িত্বের মূল বিষয়। এতদুভয়ের নিরাপত্তা রক্ষায় তাদেরকে সামাজিক, সামরিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক বহু গুরু দায়িত্ব পালন করতে হয় সরকারকে। যেমন— ১. দ্বীনের হিফাযত মুসলিম সরকারের প্রধান দায়িত্ব। এক্ষেত্রে সর্বপ্রথম যে বিষয়টি আসবে, সেটি হচ্ছে দ্বীনের মূলনীতিসমূহ সংরক্ষণ ও নির্ভেজাল আক্বীদা লালন। সরকারকে একদিকে যেমন আক্বীদা, আমল, আখলাক, হুকুম-আহকাম বাস্তবায়নের চেষ্টা করতে হবে, তেমনি দ্বীনের ব্যাপারে যাবতীয় ভ্রান্ত আক্বীদা-আমলকে দূরীভূত করতে হবে। ২. বিবাদমান দুই পক্ষের মধ্যে ইনছাফের সাথে বিচার-ফয়সালা করে দেওয়া সরকারের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব, যাতে যালেম আর সীমালঙ্ঘন করতে না পারে এবং মাযলূম ধীরে ধীরে আরো দুর্বল না হয়ে যায়। সেজন্য, সরকারকে যোগ্য ও ন্যায়পরায়ণ বিচারক নিয়োগ দিতে হবে এবং বিচারকার্য তদারকি করতে হবে। তবে, অন্যায়ভাবে বিচারকার্যে হস্তক্ষেপ করার অধিকার সরকারের নেই। অনুরূপভাবে শরীআত পরিপন্থী কোনো ফয়সালা বিচারক দিতে পারবেন না। ৩. শরীআত নির্ধারিত দণ্ডবিধি সরকারকেই বাস্তবায়ন করতে হবে। তাহলে সমাজে অপরাধ একেবারেই কমে যাবে। ৪. সরকারকে আদর্শবান হতে হবে। চরিত্র, আমল-আখলাকে জনগণের জন্য মডেল হতে হবে। সরকার ভালো হলে জনগণও ভালো হতে সচেষ্ট হবে। পক্ষান্তরে সরকার এর বিপরীত হলে জনগণও সেদিকে যাওয়ার চেষ্টা করবে। ৫. সৎকাজের আদেশ ও অসৎকাজ থেকে নিষেধের দায়িত্ব সরকারকে নিতে হবে। দ্বীন ও দেশ রক্ষায় এর বিকল্প নেই (দ্র. আলে ইমরান, ৩/১০৪)। অতএব, সরকার এমন কিছু লোক নিয়োগ দিবে, যারা এই গুরুত্বপূর্ণ কাজটি করবেন। ৬. একটি জাগ্রত ইসলামী রাষ্ট্রের মূল বৈশিষ্ট্য হচ্ছে জ্ঞান-বিজ্ঞান। দেশের শান্তি-সমৃদ্ধিতে এর ভূমিকা অসামান্য। সুতরাং সরকারের উপর এর পৃষ্ঠপোষকতা করা অতীব জরুরী। পক্ষান্তরে যেসব জ্ঞান দ্বীন ও দেশের জন্য ক্ষতিকর, সেগুলো নিষিদ্ধ করাও সরকারের দায়িত্ব। ৭. সরকারকে জনগণের প্রতি সহানুভূতি প্রদর্শন করতে হবে। তাদের উপর তাদের সাধ্যাতীত বোঝা চাপানো যাবে না (মুসলিম, হা/১৮২৮)। ৯. জনগণের হিতাকাঙ্ক্ষী হওয়া এবং তাদের সাথে খেয়ানত না করা সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব। এক্ষেত্রে যদি সরকার সচেষ্ট হতে পারে, তাহলে সবাই সফলতার মুখ দেখতে পারবে। অন্যথা ফল ভালো হবে না (মুসলিম, হা/১৪২)। ১০. অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক উভয় দিক থেকে সরকারকে দেশের নিরাপত্তা রক্ষা করতে হবে। যাতে দেশের মধ্যকার বা বাইরের কেউ শান্তি-শৃঙ্খলা বিঘ্নিত করতে না পারে, সেজন্য কার্যকরী পদক্ষেপ সরকারকে নিতে হবে। ১১. দেশের সীমান্ত রক্ষা করা সরকারের গুরু দায়িত্ব। সেকারণে, সরকারকে সীমান্ত রক্ষার জন্য বিশেষ সশস্ত্র বাহিনী গঠন করতে হবে, তাদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে এবং প্রয়োজনীয় সমরাস্ত্র সরবরাহ করতে হবে, যাতে বহিঃশত্রু কর্তৃক দেশ আক্রান্ত না হয় (আল-আনফাল, ৮/৬০)। ১২. আল্লাহর রাস্তায় জিহাদ পরিচালনা করা সরকারের গুরুত্বপূর্ণ একটি সামরিক দায়িত্ব। সরকারের নেতৃত্বে জনগণের উপর আল্লাহর রাস্তায় জিহাদ করা ফরয। ১৩. ইসলামী আইন ও বিধিবিধান ক্বায়েম করা সরকারের রাজনৈতিক দায়িত্ব। দ্বীন ও রাজনীতির মধ্যে বিভাজন করে দ্বীনকে মসজিদে বন্দী করা যাবে না। ১৪. পরামর্শভিত্তিক সিদ্ধান্ত নেওয়া ও পদক্ষেপ গ্রহণ করা সরকারের গুরুত্বপূর্ণ একটি দায়িত্ব (আলে ইমরান, ৩/১৫৯)। ১৫. যোগ্য নেতৃত্ব নির্বাচন সরকারের অতীব গুরুত্বপূর্ণ একটি দায়িত্ব। রাষ্ট্র পরিচালনা করতে পারবে এমন আমানতদার ও শক্তিশালী দায়িত্বশীল নিয়োগ দেওয়া সরকারের কর্তব্য, যাতে তারা রাষ্ট্র পরিচালনায় রাষ্ট্রপ্রধানের সাথে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে পারেন (আল-ক্বছাছ, ২৮/২৬)। ১৬. সরকারকে অবশ্যই রাষ্ট্র ও জনগণের বিষয়াদি নিজে তত্ত্বাবধান করতে হবে। শুধু দায়িত্বশীলদের উপর নির্ভর করলে চলবে না। ১৭. জনগণের মধ্যে ইনছাফ প্রতিষ্ঠা করা সরকারের আরেকটি গুরু দায়িত্ব (আন-নিসা, ৪/৫৮)। ১৭. সরকারকে বৈধ পন্থায় রাষ্ট্রীয় তহবিল সমৃদ্ধির কাজে মনোনিবেশ করতে হবে। যাকাত, ছাদাক্বা, খারাজ, জিযিয়া এবং রাষ্ট্রের অন্যান্য আয় রাষ্ট্রীয় তহবিলের বৈধ উৎস হতে পারে। যাকাত উত্তোলন ও নির্ধারিত খাতে বণ্টন মুসলিম সরকারের অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি দায়িত্ব। ১৮. রাষ্ট্রীয় মালের সুষ্ঠু বণ্টন করা সরকারের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব। রাষ্ট্রীয় কর্মকর্তা-কর্মচারী ও চাকরিজীবীদের বেতন-ভাতা সহ অন্যান্য ব্যয়ের খাত যথারীতি হিসাব করে সুষ্ঠুভাবে রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে মাল খরচ করতে হবে। কোনোভাবেই যেন মালের অপচয় ও অপব্যবহার না হয় সেদিকে সরকারকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। ১৯. সামাজিক সম্প্রীতি ও সংহতি গড়ে তুলতে হবে। একটি রাষ্ট্রের শান্তির জন্য জনগণের পারস্পরিক সম্প্রীতি, সংহতি, সৌহার্দ, সাহায্য-সহযোগিতা, আন্তরিকতার অপরিসীম গুরুত্ব রয়েছে। সরকারকে এ দায়িত্ব পালন করতে হবে। ২০. সমৃদ্ধি ও উন্নতির বিভিন্ন মাধ্যম সহজ করে দিতে হবে। এখানে অনেক দায়িত্ব সরকারের কাঁধে চাপে। যেমন— জনগণের জন্য শিক্ষা, চিকিৎসা ও উপযুক্ত বাসস্থানের বিষয়টি সহজলভ্য করে দেওয়া, কৃষিকাজের জন্য সার্বিক সহযোগিতা করা, জনশক্তিকে কাজে লাগানো, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি উৎপাদন করা। যেগুলো কোনোভাবেই দেশে উৎপাদন সহজ নয়, সেগুলো আমদানী ও সরবরাহের পথ সুগম করা ইত্যাদি।

আসুন! আমরা সরকার ও জনগণ পরস্পরের দায়িত্ব যথারীতি পালনের মাধ্যমে একটি সুখী-সমৃদ্ধ দেশ গড়ার প্রত্যয় নিই। এটাই হোক স্বাধীনতার মাসের অঙ্গীকার। মহান আল্লাহ আমাদের তাওফীক্ব দান করুন। আমীন!