মদ খেলে চলবে না বাইক

মদ পান করলে চলবে না, এমন একটি ইলেকট্রিক বাইক তৈরি করেছেন ভারতের উত্তরপ্রদেশের এক কলেজের শিক্ষার্থীরা। মোতি লাল নেহেরু ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ১৩ জন শিক্ষার্থী মিলে এটি আবিষ্কার করেছেন। এই বিশেষ বাইকের নাম রাখা হয়েছে হাইব্রিড ইলেকট্রিক গারুন। চালক যাতে সুরক্ষিত থাকেন সে কারণে এই বাইকে লাগানো হয়েছে একটি বিশেষ সেন্সর। যদি কোনো ব্যক্তি মদপানের পর এই বাইক চালানোর চেষ্টা করেন, তবে তিনি তা পারবেন না। এমনকি চালানো তো দূরের কথা মদপানের পর এই বাইক স্টার্টও করা যাবে না। ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বাইকের ফিচার আধুনিক হলেও এটি তৈরিতে খরচ হয়েছে মাত্র ২৫ হাজার টাকা। এই বাইকে মোট দু’জন ব্যক্তি বসতে পারবেন। ঐ কলেজের ডিজাইন এবং ইনোভেশন সেন্টারের কোন্ডঅর্ডিনেটর শিভেশ শর্মা বলেন, এই বাইকে একটি দারুণ অ্যালকোহল সেন্সর লাগানো হয়েছে, যে কারণে বাইকটি নিরাপদ এবং ‘স্পেশাল’ হয়ে উঠেছে। বাইকের বিশেষত্ব রয়েছে এর ইলেকট্রনিক সার্কিটে।

বাংলাদেশে প্রথম ভেন্টিলেটর যন্ত্র তৈরি

ডা. কাজী স্বাক্ষর এবং ইঞ্জিনিয়ার বায়েজীদ শুভ সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে বাংলাদেশে প্রথম ভেন্টিলেটর বা কৃত্রিম শ্বাস প্রশ্বাস মেশিন তৈরি করলেন। যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘স্পন্দন’। এটা মুমূর্ষু রোগীর জীবন বাঁচাতে ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদী তারা।

জানা গেছে, এর মাধ্যমে tidal volume, IE ratio, peak flow, apnea, pressure, respiratory rate, রোগীর শ্বাস সেন্সর সবই নিখুঁতভাবে করা যায়। ডিভাইসটি বানাতে তাদেরকে প্রত্যক্ষভাবে সহযোগিতা করেছেন ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এ এফ কিংশুক এবং আহসানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র তাজবিরুল হাসান কাব্য। এছাড়া পরামর্শ ও সার্বিক সহযোগিতা করেছেন অনেকে।